কাদের সিদ্দিকী ঐক্যফ্রন্ট ছাড়ছেন Reviewed by Momizat on . জোটের সঙ্গে আলোচনা ছাড়াই হঠাৎ ইউটার্ন নিয়ে বিএনপি সংসদে যোগ দেওয়ায় নানামুখী সংকট দেখা দিয়েছে দলটির নেতৃত্বাধীন ২০ দল ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে। ক্ষোভে ২০ দলের অন্যতম জোটের সঙ্গে আলোচনা ছাড়াই হঠাৎ ইউটার্ন নিয়ে বিএনপি সংসদে যোগ দেওয়ায় নানামুখী সংকট দেখা দিয়েছে দলটির নেতৃত্বাধীন ২০ দল ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে। ক্ষোভে ২০ দলের অন্যতম Rating: 0
You Are Here: Home » রাজনীতি » কাদের সিদ্দিকী ঐক্যফ্রন্ট ছাড়ছেন

কাদের সিদ্দিকী ঐক্যফ্রন্ট ছাড়ছেন

কাদের সিদ্দিকী ঐক্যফ্রন্ট ছাড়ছেন

জোটের সঙ্গে আলোচনা ছাড়াই হঠাৎ ইউটার্ন নিয়ে বিএনপি সংসদে যোগ দেওয়ায় নানামুখী সংকট দেখা দিয়েছে দলটির নেতৃত্বাধীন ২০ দল ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে। ক্ষোভে ২০ দলের অন্যতম শরিক বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বিজেপি চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থ গত ৬ মে জোট থেকে বেরিয়ে গেছেন। একই ইস্যুতে সংক্ষুব্ধ ২০ দলের আরেক শরিক লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি) সভাপতি ড. কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বলেছেন- সংসদে যোগ দিয়ে বিএনপি আত্মঘাতী কাজ করেছে। প্রয়োজনে নেতৃত্ব ছেড়ে দিতে বিএনপিকে পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।অন্যদিকে, অবস্থান পরিষ্কার করার জন্য ৮ জুন পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ছাড়ার আল্টিমেটাম দিয়েছেন ফ্রন্ট শরিক কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী। জানা গেছে, পূর্ব ঘোষিত আল্টিমেটাম অনুযায়ী আসন্ন রোজার ঈদের পর জুনের প্রথমার্ধ্বেই ঐক্যফ্রন্ট ছাড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে কাদের সিদ্দিকীর দল।
বর্তমানে বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে জেলে থেকে আমাদেরকে নির্দেশ দেওয়া সম্ভব না, তারেক রহমানের পক্ষেও লন্ডন থেকে সক্রিয়ভাবে মাঠে থাকা সম্ভব নয়, সুতরাং আমাদেরকে সেই দায়িত্ব নিতে হবে এবং আমি সেই দায়িত্ব নেওয়ার জন্য প্রস্তুত, বিএনপি নেতাদের অনুরোধ করবো-হয় আপনারা নেতৃত্ব দিন, নইলে আমাদের নেতৃত্ব গ্রহণ করুন।’ গত ১৬ মে ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে অলি আহমদের এই বক্তব্যে অস্বস্তি বিরাজ করছে বিএনপিতে। দলটির নেতৃত্বাধীন ২০ দলের অন্য শরিকদের মধ্যেও এনিয়ে সন্দেহ-সংশয় বিরাজ করছে। এছাড়া অলি আহমদের ১৬ মে’র ওই অনুষ্ঠানে ২০ দলের অন্যতম শরিক জামায়াতের দায়িত্বশীল নেতাদের সরব উপস্থিতিও ভাবনায় ফেলেছে বিএনপিসহ ২০ দলকে। অলি আহমদের ওই বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ইতোমধ্যে ভাইরাল হয়েছে। প্রায় প্রতিদিনই অলি আহমদের ছবি দিয়ে তার ওই বক্তব্য ট্রল করা হচ্ছে। সব মিলিয়ে এনিয়ে এক ধরনের পারস্পরিক অবিশ্বাস জন্ম নিয়েছে।
বিএনপি ও ২০ দলের একাধিক দায়িত্বশীল নেতা বলেন, হঠাত্ অলি আহমদের এই বক্তব্য বিএনপি ও ২০ দলকে বিব্রত করেছে। তাছাড়া অলি আহমদের বক্তব্যটি কখনও হুবহু, কখনও আংশিক সম্পাদনা করে, কখনও বিকৃত আকারে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। এ কারণে বিষয়টি নিয়ে কিছুটা সন্দেহ দেখা দিয়েছে। বিএনপি নেতারা জানান, বিষয়টি নিয়ে তারেক রহমান ইতোমধ্যে বিএনপির জ্যেষ্ঠ একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলেছেন। এমনকি ২০ দলের দুটি শরিক দলের প্রধানের সঙ্গেও কথা বলেছেন তারেক রহমান।
অলি আহমদের এই বক্তব্যের পাশাপাশি এলডিপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিমের একটি টেলিভিশনের টকশোতে দেওয়া বক্তব্য পারস্পরিক সন্দেহ-সংশয়কে আরও পোক্ত করেছে। ঐক্যফ্রন্ট নেতা মাহমুদুর রহমান মান্না ও অধ্যাপক আবু সাইয়িদের উপস্থিতিতে ওই টকশোতে এলডিপি নেতা সেলিম বলেছেন, ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেন বিশেষ কোনো মহলের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করতেই জোটকে নির্বাচনে নিয়েছেন। পূর্ব পরিকল্পিতভাবেই ড. কামাল এই কাজটি করেছেন। ওই টকশোতে সেলিম আরও বলেছেন, গণফোরামের মত দলের পক্ষে কোনোদিন ভোটে জিতে সংসদে যাওয়া সম্ভব নয়। সেখানে বিএনপির ঘাড়ে চড়ে গণফোরামের দুইজন সংসদ সদস্য আজ সংসদে।

About The Author

Number of Entries : 2800

Leave a Comment

মুক্তগাছা ভবন, বাড়ি নং -১৩, ব্লক -বি, প্রধান সড়ক, নবোদয় হাউজিং, আদাবর, ঢাকা-১২০৭; সম্পাদক ও প্রকাশক; আলহাজ্ব মোঃ সাদিকুর রহমান বকুল ; জাতীয় দৈনিক আজকের নতুন খবর;

Scroll to top