সড়ক দুর্ঘটনা: হাসপাতালে নেয়ার পথে এত মৃত্যু ? Reviewed by Momizat on . ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জরুরী বিভাগে গেলেই চিরচেনা শব্দ কানে ভেসে আসে। ব্যথায় কাতর রোগীদের গোঙানি আর স্বজনের কান্নায় ভারি হয়ে থাকে দেশের সবচাইতে ব্যস্ত এ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জরুরী বিভাগে গেলেই চিরচেনা শব্দ কানে ভেসে আসে। ব্যথায় কাতর রোগীদের গোঙানি আর স্বজনের কান্নায় ভারি হয়ে থাকে দেশের সবচাইতে ব্যস্ত এ Rating: 0
You Are Here: Home » জাতীয় » সড়ক দুর্ঘটনা: হাসপাতালে নেয়ার পথে এত মৃত্যু ?

সড়ক দুর্ঘটনা: হাসপাতালে নেয়ার পথে এত মৃত্যু ?

সড়ক দুর্ঘটনা: হাসপাতালে নেয়ার পথে এত মৃত্যু ?

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জরুরী বিভাগে গেলেই চিরচেনা শব্দ কানে ভেসে আসে। ব্যথায় কাতর রোগীদের গোঙানি আর স্বজনের কান্নায় ভারি হয়ে থাকে দেশের সবচাইতে ব্যস্ত এই জরুরী বিভাগটি।

সেখানে করিডোরের মেঝেতে গামছা পেতে ঘুমিয়ে ছিলেন মিরসরাই উপজেলার বারৈয়ারহাট থেকে আসা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী দেলোয়ার হোসেন।

সড়ক দুর্ঘটনায় গত বছরের রমজান মাসে গুরুতর আহত হয়েছিলেন। তার মাথার কাছে দুটো ক্র্যাচ দাঁড় করিয়ে রাখা।

মেঝেতে কয়েকটি কাপড়ের বোচকা ভর্তি দরকারি জিনিসপত্র।

তার উপর বসে স্ত্রী আসমা বেগম বলছিলেন, “দোকানের জন্য মাল কিনতে গেছিলো। মাল নিয়ে আসার সময় দুই দিক থেকে দুইটা গাড়ি একত্রে ওর সিএনজিটাকে মেরে দিছে। মাথায় আঘাত পাইছে, পা আর হাত এই দুইটাই ভাঙ্গি গেছে।”

ঘটনার দিন আশপাশের পথচারী ও দোকানিরা কয়েকজন মিলে তাকে একটি সিএনজিতে করে নিয়ে গিয়েছিলেন স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।

আসমা বেগম সেই দিনটির ভয়াবহ অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিয়ে বলছিলেন, “প্রথমে আমাদের গ্রামে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স একটা আছে সেইখানে নিয়ে গেছিলো। কিন্তু সেইখানে রাখে নাই। বলছে চিটাগাং নিয়ে যান। ওর অবস্থা মারাত্মক ছিলো। পা এইটা এইখানে ছুটে গেছিলো। সেখান থেকে ভীষণ রক্ত বাইর হইতেছিল। চিটাগাং নেয়ার সময় গাড়িতে খ্যাতা কাপড় যা ছিলো সব রক্তে ভাসি গেছিলো।”

তিনি বলছিলেন, “আছরের পরে অ্যাকসিডেন্ট হইছে। রাত্রি দুইটা বাজে চিকিৎসা পাইছে।”

অর্থাৎ এরকম ভয়াবহ আহত একজন ব্যক্তির প্রথমে দুর্ঘটনা স্থল, তারপর স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, সর্বশেষ সড়কপথে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পর্যন্ত যাত্রা। এতে সবমিলিয়ে ৯ থেকে ১০ ঘণ্টার মতো লেগে গিয়েছিলো সঠিক চিকিৎসা সেবা শুরুই করতে।

এখন হাসপাতালে যাওয়া আসার মধ্যেই জীবন পার করছেন আসমা বেগম, দেলোয়ার হোসেন ও তাদের পরিবার।

পায়ে বেশ সমস্যা রয়ে গেছে। বেশ কবার অস্ত্রোপচার করা হয়েছে। আবার করতে হবে।

প্রতিবন্ধীতার মুখোমুখি দেলোয়ার হোসেন অন্তত প্রাণে বেঁচে গেছেন। স্বামীর পাশে থাকার সুযোগ পাচ্ছেন আসমা বেগম।

Image caption
আসমা বেগমের দিন কাটছে দুর্ঘটনার শিকার স্বামীর সেবা করে।
কিন্তু তেমন সৌভাগ্যের অধিকারী নন বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার বিশাল সংখ্যক আহত ব্যক্তি।

ঢাকা মেডিকেলের মর্গের পাশে স্তব্ধ হয়ে বসে ছিলেন কুমিল্লার চৌহারার রাজিয়া বেগম।

সপ্তাহ-খানেক আগে দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছিলেন তার রিকশাওয়ালা বাবা। বুধবার ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে আসার পথে মারা গেছেন তিনি।

সেভাবেই তাকে হাসপাতাল পর্যন্ত নিয়ে আসা হয়েছিল। এখন তার মরদেহ গ্রামে ফিরিয়ে নিয়ে যাবার যোগাড় চলছে।

দুটো একই ধরনের গল্প শুধু তফাৎটা হল রাজিয়া বেগমের বাবা প্রাণে বাঁচেন নি।

বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার ব্যক্তিদের মধ্যে গড়ে চারভাগের তিনভাগই হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান। অথবা সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর ৬৩ শতাংশই ঘটছে হাসপাতালে নেয়ার পথে।সূত্র বিবিসি

About The Author

Number of Entries : 3254

Leave a Comment

মুক্তগাছা ভবন, বাড়ি নং -১৩, ব্লক -বি, প্রধান সড়ক, নবোদয় হাউজিং, আদাবর, ঢাকা-১২০৭; সম্পাদক ও প্রকাশক; আলহাজ্ব মোঃ সাদিকুর রহমান বকুল ; জাতীয় দৈনিক আজকের নতুন খবর;

Scroll to top