সন্ত্রাসবাদীদের পরিবারের সদস্যদের মুক্তি Reviewed by Momizat on . পুলিশ বাহিনীর মনোবল অক্ষুন্ন রাখতে জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ কর্তারা সন্ত্রাসবাদীদের পরিবারের সদস্যদের মুক্তি দিয়েছে। ঘটনাটা ঘটেছে দক্ষিণ কাশ্মীরে। শ্রীনগরে সতর্কঅবস্ পুলিশ বাহিনীর মনোবল অক্ষুন্ন রাখতে জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ কর্তারা সন্ত্রাসবাদীদের পরিবারের সদস্যদের মুক্তি দিয়েছে। ঘটনাটা ঘটেছে দক্ষিণ কাশ্মীরে। শ্রীনগরে সতর্কঅবস্ Rating: 0
You Are Here: Home » আন্তর্জাতিক » সন্ত্রাসবাদীদের পরিবারের সদস্যদের মুক্তি

সন্ত্রাসবাদীদের পরিবারের সদস্যদের মুক্তি

সন্ত্রাসবাদীদের পরিবারের সদস্যদের মুক্তি

পুলিশ বাহিনীর মনোবল অক্ষুন্ন রাখতে জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ কর্তারা সন্ত্রাসবাদীদের পরিবারের সদস্যদের মুক্তি দিয়েছে। ঘটনাটা ঘটেছে দক্ষিণ কাশ্মীরে। শ্রীনগরে সতর্কঅবস্থায় ভারতের এক নিরাপত্তা কর্মী। 

পুলিশ বাহিনীর মনোবল অক্ষুণ্ন রাখতে জম্মু-কাশ্মীরের পুলিশকর্তারা সন্ত্রাসবাদীদের পরিবারের সদস্যদের মুক্তি দিয়েছে। ঘটনাটা ঘটেছে দক্ষিণ কাশ্মীরে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি এ খবর জানিয়েছে।

দক্ষিণ কাশ্মীরে গত বুধবার এক ঘটনায় সন্ত্রাসবাদীরা পুলিশের চার কর্মীকে হত্যা করে। অপরাধীদের ধরতে দক্ষিণ কাশ্মীরের অনন্তনাগ, কুলগাম, সোপিয়ান ও পুলওয়ামা জেলায় তল্লাশি চালানো হয়। সে সময় কয়েকটি বাড়িতে আগুন লাগানো হয় এবং সন্ত্রাসীদের পরিবারের কয়েকজনকে গ্রেপ্তারও করা হয়। ধৃতদের মধ্যে ছিলেন হিজবুল মুজাহিদ্দিন গোষ্ঠীর স্বঘোষিত কমান্ডার রিয়াজ নাইকুর বাবা আসাদুল্লাহ নাইকু। এর পাল্টা হিসেবে সন্ত্রাসবাদীরাও আটক করে পুলিশকর্মীদের পরিবারের কিছু সদস্যকে। বাহিনীর মনোবল অটুট রাখতে এবং পুলিশের কর্মীদের পরিবারের সদস্যদের ছাড়াতে শেষ পর্যন্ত সন্ত্রাসীদের পরিবারের আটক ১১জন সদস্যকে মুক্তি দেওয়া হয়।

জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের মহাপরিচালক শীষপল বৈদ গত বছর বলেছিলেন, পুলিশকর্মীদের পরিবারের লোকজনের ওপর অত্যাচার করলে সন্ত্রাসবাদীদের পরিবারও ছাড় পাবে না। ওই মন্তব্য ঘিরে বিতর্ক সৃষ্টি হলেও সন্ত্রাসীদের ধরতে পরিবারের লোকজনকে আটক করা নতুন কিছু নয়। কিন্তু এই প্রথম পাল্টা চাল চেলে সন্ত্রাসবাদীরাও পুলিশ কর্মীদের পরিবারের লোকজনকে আটক করে নিজেদের পরিবারের সদস্যদের মুক্তি আদায় করে নিল। এবং সেটা বলেকয়েই করা। হিজবুল কমান্ডার রিয়াজ নাইকু ‘চোখের বদলে চোখ’ নেওয়ার কথা বলেছিলেন। তার পরেই অপহরণ করা হয় পুলিশ কর্মীদের পরিবারের সদস্যদের।

কাশ্মীর উপত্যকায় সন্ত্রাসবাদী কাজকর্মের সূত্রপাতও ঘটেছিল এ ধরনের অপহরণের মধ্য দিয়ে। ১৯৮৯ সালে কেন্দ্রে বিশ্বনাথ প্রতাপ সিং সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হয়েছিলেন কাশ্মীরের সাবেক কংগ্রেস নেতা মুফতি মহম্মদ সঈদ। তাঁর কন্যা মেডিকেল ছাত্রী রুবাইয়াকে সন্ত্রাসবাদীরা অপহরণ করেছিল। তাদের দাবি ছিল, রাজ্যে আটক চার সন্ত্রাসবাদী নেতার মুক্তি। মুখ্যমন্ত্রী ফারুক আবদুল্লাকে বাধ্য করা হয়েছিল সেই দাবি মানতে।

About The Author

Number of Entries : 2800

Leave a Comment

মুক্তগাছা ভবন, বাড়ি নং -১৩, ব্লক -বি, প্রধান সড়ক, নবোদয় হাউজিং, আদাবর, ঢাকা-১২০৭; সম্পাদক ও প্রকাশক; আলহাজ্ব মোঃ সাদিকুর রহমান বকুল ; জাতীয় দৈনিক আজকের নতুন খবর;

Scroll to top