গাইবান্ধায় বিদ্যুতের দুর্নীতিতে বিপর্যস্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ Reviewed by Momizat on .   [caption id="attachment_19255" align="alignleft" width="300"] গাইবান্ধায় বিদ্যুতের দুর্নীতিতে বিপর্যস্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ[/caption] গাইবান্ধা থেকে : গাইবান্   [caption id="attachment_19255" align="alignleft" width="300"] গাইবান্ধায় বিদ্যুতের দুর্নীতিতে বিপর্যস্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ[/caption] গাইবান্ধা থেকে : গাইবান্ Rating: 0
You Are Here: Home » অপরাধ » গাইবান্ধায় বিদ্যুতের দুর্নীতিতে বিপর্যস্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ

গাইবান্ধায় বিদ্যুতের দুর্নীতিতে বিপর্যস্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ

 

গাইবান্ধায় বিদ্যুতের দুর্নীতিতে বিপর্যস্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ

গাইবান্ধায় বিদ্যুতের দুর্নীতিতে বিপর্যস্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ

গাইবান্ধা থেকে : গাইবান্ধায় আশ্বিন মাসের এই দূঃসহ গরমে সীমাহীন বিদ্যুৎ বিভ্রাট এবং এক ঘন্টা পর পর অব্যাহত লোডশেডিংয়ের কারণে জন জীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। জেলার বিদ্যুৎ বিতরণ কর্তৃপক্ষের নানা অনিয়ম, দুর্নীতি ও লুটপাটের কারণে গাইবান্ধার সার্বিক বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। অথচ কর্তৃপক্ষের টনক নড়ছে না।
অভিযোগে জানা গেছে,  বিদ্যুৎ সংরক্ষণ ক্ষমতা ও অকেজো সরবরাহ লাইন এবং গাইবান্ধা বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা উন্নয়নে ব্যাপক ঘাবলা ও লুটপাটের কারণেই মূলত: এখন লেজে গোবরে অবস্থা। গ্রাহক সেবার বদলে তাদের অন্ধকারে রেখে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বিদ্যুৎ বিভাগের এক শ্রেণীর দুর্নীতি পরায়ন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। ফলে সীমাহীন বিদ্যুৎ বিভ্রাটে জনগণকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। রাত ১১টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত বিদ্যুতের লোডশেডিং কিছুটা কম থাকলেও সকাল ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত এক ঘন্টা পর পর হয় লোডশেডিং না হয় বিদ্যুৎ সরবরাহ ঘাটতির অজুহাতে গোটা শহর এবং পার্শ্ববর্তী এলাকায় লোডশেডিং করা হচ্ছে গত একমাস যাবত। অথচ এই ঘন ঘন সীমাহীন লোডশেডিংয়ের কারণে জেলা শহর থেকে প্রকাশিত ৬টি দৈনিক পত্রিকা ও ৩টি সাপ্তাহিক পত্রিকা নিয়মিত প্রকাশনা ব্যাহত হচ্ছে। এছাড়া বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীদের কম্পিউটার, ফটোষ্ট্রাট মেশিন, ফ্রিজ, টেলিভিশন, ব্যাটারী চার্জার, বৈদ্যুতিক বাল্ব, ফ্যানসহ বিদ্যুৎ নির্ভর ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। অথচ এব্যাপারে সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবরে অভিযোগ এবং সংবাদপত্রে অনেক লেখালেখি করেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি।
জানা গেছে, গাইবান্ধা বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রের সংরক্ষণ ক্ষমতা বর্তমানে ২০ মেগাওয়াট হলেও দুর্বল যন্ত্রপাতির কারণে সর্বোচ্চ সংরক্ষণ করতে পারে মাত্র ১০ মেগাওয়াট। এর বেশী বিদ্যুৎ গাইবান্ধা কন্ট্রোল রুমে আসলেও তা গ্রহণ করতে পারে না। তখন বিদ্যুৎ ট্রিপ করে এবং সরবরাহ ব্যবস্থায় জটিলতার সৃষ্টি হয়। অথচ গ্রাহক চাহিদা রয়েছে স্বাভাবিক অবস্থায় ২২ মেগাওয়াট এবং বোরো মৌসুমে ২৫ মেগাওয়াট। ঘাটতি বিদ্যুতের কারণেই লোডশেডিং এখন এ জেলায় স্বাভাবিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে। এরপরও নতুন নতুন বিদ্যুৎ লাইন সংযোগ দেয়া হচ্ছে। বর্তমানে গ্রাহক সংখ্যা প্রায় ৩২ হাজার। অর্থের বিনিময়ে প্রতিদিনই নতুন সংযোগ দেয়া হচ্ছে প্রায় ৫০টি। এরপরও কর্মকর্তা-দালাল মিলে চলছে বিদ্যুৎ চুরির মহোৎসব। তদুপরি নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে জানা যায়, গাইবান্ধা পাওয়ার ষ্টেশন থেকে বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হয়েছে প্রায় ১ হাজার। এসব সংযোগের জন্য দালাল ও লাইনম্যানের মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা ভাগ বাটোয়ারা করেন উপ-সহকারি প্রকৌশলী আবু আসাদ প্রামানিকসহ চিহ্নিত কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বিদ্যুৎ শ্রমিক ইউনিয়নের নেতা।
অভিযোগগুলো সম্পর্কে উপ-সহকারি প্রকৌশলী আবু আসাদ প্রামানিক নতুনখবরকে বলেন, তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের সত্যতা নেই। একটি মহল তাকে বিপদগ্রস্ত করতে মিথ্যা অভিযোগ এনেছে। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আনোয়ারুল ইসলাম টাকা লুটপাট ও অন্যান্য অভিযোগ অস্বীকার করে নতুনখবরকে বলেন, কোন কোন ক্ষেত্রে দুর্নীতি আগে থেকেই চলে আসছে যা  তিনি কমিয়ে আনার চেষ্টা চালাচ্ছেন। বিদ্যুৎ সরবরাহ ঘাটতির কারণেই কিছুটা বিভ্রাট ঘটলেও অচিরেই তা ঠিক হয়ে যাবে বলে উল্লেখ করেন।
নতুনখবর.কম

About The Author

Number of Entries : 19933

Leave a Comment

*

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : আলহাজ্ব মোঃ সাদিকুর রহমান বকুল, সম্পাদক ও প্রকাশক : মোঃ আসাদুজ্জামান আসাদ, ড্রিমল্যান্ড মিডিয়া লিমিটেডের পক্ষে প্রকাশক কর্তৃক ১১৭/১, রোড # ৬, মোহাম্মদীয়া হাউজিং সোসাইটি মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৮১০১৫০৫, ৮১০১৪৩২, ০১৭৬১৭৭০৫৮৩, ইমেল এড্রেস : notunkhobor2012@gmail.com © 2013 Notunkhobor.com

Scroll to top