প্রার্থীদের নানা কৌশল প্রচারণায়: নিজস্ব প্রতিবেদক, নতুন খবর | Reviewed by Momizat on . ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে এখন চলছে পুরোদমে প্রচার-প্রচারণা। এতে নানা কৌশল প্রয়োগ করে চলেছেন প্রার্থীরা। গণসংযোগ, মাইকিং, পোস্টার ঝুলানোর পাশাপাশি ভার্চু ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে এখন চলছে পুরোদমে প্রচার-প্রচারণা। এতে নানা কৌশল প্রয়োগ করে চলেছেন প্রার্থীরা। গণসংযোগ, মাইকিং, পোস্টার ঝুলানোর পাশাপাশি ভার্চু Rating: 0
You Are Here: Home » রাজনীতি » প্রার্থীদের নানা কৌশল প্রচারণায়: নিজস্ব প্রতিবেদক, নতুন খবর |

প্রার্থীদের নানা কৌশল প্রচারণায়: নিজস্ব প্রতিবেদক, নতুন খবর |

প্রার্থীদের নানা কৌশল প্রচারণায়:  নিজস্ব প্রতিবেদক, নতুন খবর |

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে এখন চলছে পুরোদমে প্রচার-প্রচারণা। এতে নানা কৌশল প্রয়োগ করে চলেছেন প্রার্থীরা। গণসংযোগ, মাইকিং, পোস্টার ঝুলানোর পাশাপাশি ভার্চুয়াল প্রচারণায়ও মনোযোগী তারা। অন্য প্রার্থীদের ভিড়ে নিজেকে আলাদাভাবে ভোটারদের কাছে পরিচিত করতে চেষ্টার কমতি নেই মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের।

ঢাকা উত্তর ও ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে মেয়র পদে মোট ১২ জন এবং সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর হিসেবে ১৭২টি পদের বিপরীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৭৪১ জন প্রার্থী৷ প্রতিটি ওয়ার্ডে মূল দুই রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির পাশাপাশি রয়েছে স্বতন্ত্র প্রার্থী। দলীয় সমর্থন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন অনেকেই। ভোটের মাঠে ভোটারদের দৃষ্টি কাড়তে মরিয়া এসব প্রার্থী।

৯ জানুয়ারি প্রতীক বরাদ্দের পর প্রচারণায় মাঠে নামেন এসব প্রার্থী। সবার নাগরিক অধিকার নিশ্চিতের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোটারদের ভোট বাগিয়ে নেয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ঝুলানো হচ্ছে পোস্টার। নির্বাচন কমিশনের বেঁধে দেয়া নিয়ম অনুযায়ী, রঙিন পোস্টার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ফলে সাদা কালো পোস্টারই প্রার্থীদের ভরসা। নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে পোস্টারের আকার।

সব বিধি মেনে কিছুটা কৌশলী হয়েছেন একাধিক প্রার্থী। দুই সিটিতে লাখ লাখ পোস্টার চোখে পড়ছে। প্রায় একই ঢংয়ের পোস্টারের ভিড়ে নির্দিষ্ট কাউকে খুঁজে পাওয়াটা কিছুটা কষ্টসাধ্য। হাজার হাজার পোস্টারের ভিড়ে নিজের পোস্টার চেনাতে কিছু প্রার্থী পোস্টার ছেপেছেন আড়াআড়ি আকারে। উত্তরের ২৯, ৩১, ৩২ নম্বর ওয়ার্ড, দক্ষিণের ১৭ সহ বেশ কিছু ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীদের এমন পোস্টার দেখা গেছে।

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মাইকিং যেন অপরিহার্য একটি বিষয়। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সেই মাইকিংয়েও কিছুটা ভিন্নতা এসেছে। সাধারণত গানের মাধ্যমে প্রার্থীদের ভোট চাওয়া হয়। এবার তরুণ প্রজন্মের দৃষ্টি কাড়তে র‌্যাপ গান ব্যবহার হচ্ছে নির্বাচনী প্রচারণায়। উত্তর সিটির ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে ক্ষমতাসীন দলের সমর্থন পাওয়া কাউন্সিলর প্রার্থী আলেয়া সারোয়ার ডেইজির পক্ষে ভোট চেয়ে মাইকিং চলছে র‌্যাপ গানের মাধ্যমে।

উঠান বৈঠক, গণসংযোগ, প্রচারপত্র বিলিকরণের মাধ্যমে প্রার্থীরা তাদের নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। পাশাপাশি খবরের কাগজের মাধ্যমে ভোটারদের কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন তাদের নির্বাচনী প্রচারপত্র।

প্রার্থীর পক্ষে ভোটার এলাকার জনগণকে ফোন করে ভোট চাওয়া হচ্ছে বলেও খবর পাওয়া গেছে।

নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় পোস্টার সাঁটানোর পাশাপাশি প্রচারণার মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে রিকশা। উত্তর সিটির মোহাম্মদপুর, আদাবর, মিরপুর এবং দক্ষিণের যাত্রাবাড়ী, ধানমন্ডি, হাজারীবাগ, কামরাঙ্গীরচর, পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় পোস্টার সাঁটানো হয়েছে যাত্রীবাহী রিকশার পেছনে। এক্ষেত্রে কোথাও কোথাও রিকশা চালকদের রিকশা জমা বহন করছেন প্রার্থীরা।

ভোট চাওয়ার অন্যতম মাধ্যম হিসেবে এখন ব্যবহার হচ্ছে ফেসবুক। মেয়র পদে আলোচনায় থাকা আওয়ামী লীগ ও বিএনপি মনোনীত চার মেয়র প্রার্থী মাঠে সময় দেয়ার পাশাপাশি প্রচারণা চালাচ্ছেন অনলাইনে। বাদ যাচ্ছেন না কাউন্সিলর প্রার্থীরা। এর আগে নাম শোনা যায়নি এমন অনেকেই এবারের নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে। পোস্টার ছাপার আগেই খুলেছেন ফেসবুক পেইজ। যেখানে তার প্রচারণা অব্যাহত রয়েছে। ভিডিও বার্তা, স্থানীয় উন্নয়নের নানা আশ্বাস দেয়া হচ্ছে ফেসবুকের মাধ্যমে। আবার নির্দিষ্ট এলাকার জন্য এসব পোস্ট টাকা খরচ করে বুস্ট করা হচ্ছে। যাতে করে নির্বাচনী এলাকার মানুষের কাছে প্রার্থীর বার্তাটি পৌঁছায়।

আগামী ৩০ জানুয়ারি ঢাকার দুই সিটিতে নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও সরস্বতী পূজার কারণে তা দুই দিন পেছানো হয়েছে। ১ ফেব্রুয়ারি এই ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

নতুন খবর/তুম

About The Author

Number of Entries : 702

Leave a Comment

মুক্তগাছা ভবন, বাড়ি নং -১৩, ব্লক -বি, প্রধান সড়ক, নবোদয় হাউজিং, আদাবর, ঢাকা-১২০৭; সম্পাদক ও প্রকাশক; আলহাজ্ব মোঃ সাদিকুর রহমান বকুল ; জাতীয় দৈনিক আজকের নতুন খবর;

Scroll to top